অষ্টম-৮ম শ্রেণির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি একাদশ-১১তম সপ্তাহের এসাইনমেন্ট উত্তর-সমাধান ২০২১

4
643

অষ্টম /৮ম শ্রেণির একাদশ /১১শ সপ্তাহের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি এসাইনমেন্ট উত্তর/সমাধান ২০২১

Table of Contents

সকল শ্রেণির ষষ্ঠ,৭ম,৮ম,৯ম শ্রেণির একাদশ-১১তম সপ্তাহের  এসাইনমেন্ট উত্তর সমাধান ২০২১


একাদশ-১১তম সপ্তাহের ৬ষ্ঠ,৭ম, ৮ম, ৯ম শ্রেণির এসাইনমেন্ট ২০২১

আসসালামু আলাইকুম প্রিয় ছাত্র ও ছাত্রী বন্ধুরা, কেমন আছেন সবাই? আসা করি সবাই ভালো আছেন। বরাবরের মতো, প্রতি সপ্তাহে আপনার জন্য  ৬ষ্ঠ,৭ম,৮ম,৯ম ও ১০ম শ্রেণির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি এসাইনমেন্ট উত্তর অ্যাসাইনমেন্ট প্রকাশের পরে, আমরা অবিলম্বে ষষ্ঠ,৭ম, অষ্টম, নবম শ্রেণির উত্তর ২০২১ দিচ্ছি। আজকের পোস্টে, আমি তোমাদের ষষ্ঠ,৭ম,৮ম,৯ম শ্রেণির একাদশ-১১তম সপ্তাহের এসাইনমেন্ট প্রশ্ন ও উত্তর শেয়ার করে থাকি। ৬ষ্ঠ থেকে ৯ম ও ১০ম শ্রেণি পর্যন্ত এ্যাসাইনমেন্ট একাদশ-১১তম সপ্তাহের জন্য এ্যাসাইনমেন্ট । 11th week assignment 2021, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি একাদশ সপ্তাহের এসাইনমেন্ট উত্তর


আরাে দেখুন-
 
Covid-19 মহামারীর কারণে এবছরের জুলাই মাসের শেষের চলমান নির্ধারিত কাজ (এসাইনমেন্ট) কার্যক্রম স্থগিত করা হয় এবং পরবর্তীতে  অগাস্ট মাসের ১১ তারিখে পূণরায় এ্যাসাইনমেন্টের কার্যক্রম শুরু করা হয়। ২০২১ শিক্ষাবর্ষে শিক্ষার্থীদের মধ্যে পড়াশোনার ধারা বজায় রাখার জন্য পূণরায় ৬ষ্ঠ,৭ম,৮ম ও ৯ম শ্রেণির বিভিন্ন বিষয়ের উপর এসাইনমেন্ট গ্রহন করার প্রক্রিয়া চলতে থাকবে।

৬ষ্ঠ শ্রেণির একাদশ-১১তম এ্যাসাইনমেন্ট উত্তর, ৭ম ১১তম অ্যাসাইনমেন্ট সমাধান, ৮ম শ্রেণির ১১তম  অ্যাসাইনমেন্ট pdf, ৯ম শ্রেণির ১১তম, ১০ম থেকে ৯ম শ্রেণির , ssc শ্রেণির একাদশ-১১তম সপ্তাহের এসাইনমেন্ট, ৬ষ্ঠ থেকে ৯ম শ্রেণির , ৬ষ্ঠ থেকে ৯ম শ্রেণির


অষ্টম /৮ম শ্রেণির একাদশ /১১শ সপ্তাহের এসাইনমেন্ট উত্তর ২০২১ তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি

তারিখ: ১৩ আগস্ট, ২০২১ 
প্রধান শিক্ষক তোমাদের স্কুলের নাম ঢাকা। 
বিষয়: তথ্য ও যােগাযােগ প্রযুক্তির বিস্তারের ফলে বাংলাদেশে কর্মসংস্থানের নতুন দিক উন্মাচিত হয়েছে,শীর্ষক প্রতিবেদন।
জনাব, 
বিনীত নিবেদন এই যে, আপনার আদেশ নং ম.উ.বি. ২৫৬-৮ তারিখ: ১১ আগস্ট ২০২১ অনুসারে  তথ্য ও যােগাযােগ প্রযুক্তির বিস্তারের ফলে বাংলাদেশে কর্মসংস্থানের নতুন দিক উন্মােচি হয়েছে শীর্ষক প্রতিবেদনটি নিম্নে পেশ করছি।
তথ্য ও যােগাযােগ প্রযুক্তির বিস্তারের ফলে বাংলাদেশে কর্মসংস্থানের নতুন দিক উন্মােচিত হয়েছে 
ভূমিকা: তথ্য ও যোগাযােগ প্রযুক্তির ব্যাপক বিকাশের ফলে সমাজের বিভিন্ন সূত্রে বিভিন্ন ধরনের পরিবর্তন সৃচি হয়েছে। শুরুর দিকে ধারণা করা হতা স্বয়ংক্রিয়ক এবং প্রযুক্তির প্রয়ােগের ফলে বিশ্বব্যাপী কাজের পরিমাণ কমে যাবে এবং বেকারের সংখ্যা বেড়ে যাবে। কিন্তু পরবর্তী সময়ে দেখা গেছে, প্রযুক্তির বিকাশের ফলে কিছু কিছু সনাতনী কাজ বিলুপ্ত হয়েছে বা বেশ কিছু কাজের ধারা পরিবর্তন হয়েছে বটে, তবে অসংখ্য নতুন কাজের সুযােগ সৃষ্ট হয়েছে। গবেষণায় দেখা গেছে, ইন্টারনেট সংযােগ বৃদ্ধির সাথে সাথে কর্মসংস্থানের সুযােগও দ্রুতহারে বেড়ে গেছে।
উৎপাদনশীলতা: তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির প্রয়োগের ফলে উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি পেয়েছে যা বাঙালি শিক্ষাবিদ ও বর্তমানে আমেরিকার ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অব টেকনােলজির (এমআইটি) অধ্যাপক ড. ইকবাল কাদির এর মতে-সংযুক্তিই উৎপাদনশীলতা। অর্থাৎ প্রযুক্তিতে জনগণের সংযুক্তি বাড়লে তাদের উৎপাদনশীলতা বাড়ে। 
বিভিন্ন কারখানার বিপজ্জনক কাজগুলাে মানুষের পরিবর্তে রােবট কিংবা স্বয়ংক্রিয় যন্ত্রের মাধ্যমে সম্পন্ন করা যেতে পারে। কর্মস্থলে কর্মীদের উপস্থিতির সময়কাল, তাদের বেতন – ভাতাদি ইত্যাদি হিসাব করার জন্য বেশ কিছু কর্মীর প্রয়ােজন হয়। কিন্তু স্বয়ংক্রিয় উপস্থিতি যন্ত্র, বেতন-ভাতাদি হিসারের সফটওয়্যার ইত্যাদির ব্যবহারের মাধ্যমে এ সকল কাজ সম্পন্ন করা যায়। বিভিন্ন গুদামে মালামাল সুসজ্জিত করার কাজ স্বয়ংক্রিয়ভাবে করা যায়। 
দক্ষ কর্মী: তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহারের ফলে একজন কর্মী অনেক বেশি দক্ষ হয়ে ওঠে। ফলে, অনেক প্রতিষ্ঠানই স্বল্প কর্মী দিয়ে বেশি কাজ করিয়ে নিতে পারে। আইসিটির কারণে অনেক কাজের ধরন প্রতিনিয়ত বদলে যাচ্ছে। এর মধ্যে রয়েছে- পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে কর্মক্ষেত্রে টিকে থাকার জন্য নিজেকে ক্রমাগত দক্ষ করে তুলতে হয়। ফলে দক্ষতা উন্নয়নের কর্মসূচিতে প্রতিনিয়ত পরিবর্তন সাধিত হচ্ছে। অন্যদিকে কম্পিউটারের সাহায্যে অনেক ধরনের কাজ ঘরে বসেই করা সম্ভব হচ্ছে। 

আবার অনেক ক্ষেত্রে পূর্বে বিশেষ দক্ষতা না থাকলে যে কাজ সম্পন্ন করা যেত না, এরূপ অনেক কাজ কম্পিউটারের সহায়তায় সহজে সম্পন্ন করা যাচ্ছে। যেমন – ফটোগ্রাফি বা ভিডিও এডিটিং। অনেকে ঘরে বসে কাজ করছে। ফলে অনেক প্রতিষ্ঠানই এখন ভার্চুয়াল প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে। এ সকল প্রতিষ্ঠানে সহায়ক ক্মীর সংখ্যা যেমন কমেছে, তেমনি তাদের কাজের ধরনও পাল্টে গেছে স্বয়ংক্রিয়ভাবে মনিটরিং করা সম্ভব হওয়াতে কর্মীদের কাজে ফাঁকি দেওয়ার প্রবণতা ক্রমান্বয়ে হ্রাস পাচ্ছে। ইত্যাদি।  
নতুন কর্মের খাতসমূহ: তথ্য ও যােগাযােগ প্রযুক্তির সবচেয়ে বড় প্রণােদনা হলাে এর মাধ্যমে নিত্যনতুন কাজের ক্ষেত্র তৈরি হয়। ফলে অনেক বেশি কাজের সুযােগ তৈরি হয়। জাতীয় রাজস্ব আয় বৃদ্ধি ছাড়াও কেবল মােবাইল ফোনের বিকাশের ফলে বাংলাদেশে অনেক সেক্টরে বিপুল পরিমাণ নতুন কর্মের সৃষ্টি হয়েছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য কয়েকটি হলাে –
(ক) মােবাইল কোম্পানিতে কাজের সুযােগ: দেশের সকল মােবাইল অপারেটর কোম্পানিতে বিপুলসংখ্যক কর্মীর কর্মসংস্থান হয়েছে। একটি মােবাইল কোম্পানি বর্তমানে দেশের সবচেয়ে বড় প্রযুক্তিবিষয়ক কোম্পানি।
(খ) মােবাইল ফোনসেট বিক্রয়, বিপণন ও রক্ষণাবেক্ষণ: দেশের প্রায় ১২ কোটি মােবাইল গ্রাহককে মােবাইল ফোন সেট সরবরাহ, সেগুলাের বিপণন, বিক্রয় এবং পরবর্তীকালে বিক্রয়ােত্তর সেবার জন্য বিপুল পরিমাণ কর্মীর চাহিদা সৃষ্টি হয়েছে।
(গ) বিভিন্ন মােবাইল সেবা প্রদান: মােবাইল ফোনে বিল পরিশােধের জন্য দেশে প্রতিনিয়ত বিল পরিশােধ কেন্দ্র বৃদ্ধি পাচ্ছে। এই সকল কেন্দ্রে যেকোনাে মােবাইল গ্রাহক তার মােবাইলের বিল পরিশোেধসহ অন্যান্য মােবাইল সেবা গ্রহণ করতে পারে।
(ঘ) নতুন খাতের সৃষ্টি: মােবাইলে প্রযুক্তি বিস্তারের ফলে মােবাইল ব্যাংকিংয়ের মতাে অসংখ্য নতুন খাতের সৃষ্টি হয়েছে, যার মাধ্যমে অনেক নতুন কর্মশ্রত্যাশীর কর্মসংস্থানের সুযােগ হয়েছে। 
কর্ম প্রত্যাশীদের জন্য আইসিটির ভূমিকা: শুধু কর্মসূজন নয়, কর্মপ্রত্যাশীদের কাজের সুযােগ প্রাপ্তিতেও ইন্টারনেট ও তথ্যপ্রযুক্তির বড় ভূমিকা রয়েছে। পূর্বে যেকোনাে ধরনের নিয়ােগ বিজ্ঞপ্তি সংশ্লিষ্ট দপ্তরের নােটিশ বাের্ড, বড় বড় সরকারি প্রতিষ্ঠানের দেওয়ালে সেঁটে দেওয়া ইতাে। এছাড়া বড় বড় কোম্পানি বা সরকারি কর্মী নিয়ােগের বিজ্ঞপ্তি পত্রপত্রিকায় বিজ্ঞাপন আকারে প্রকাশিত হতাে। 
আইসিটি বিকাশের ফলে বর্তমানে ইন্টারনেটে জবসাইট নামে নতুন এক ধরনের সেবা চালু হয়েছে। এই সকল জবসাইটে নিয়ােগকারী প্রতিষ্ঠান সরাসরি তাদের বিজ্ঞপ্তি প্রচার করতে পারে। শুধু তাই নয়, নিয়ােগকারী প্রতিষ্ঠানসমূহ তাদের ওয়েবসাইট কিংবা ফেসবুকের মতাে সামাজিক ফােগাযোেগ সাইটেও বিনামূল্যে নিয়ােগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করতে পারে। 
ফলে , কর্মপ্রত্যাশীদের একটি বিরাট অংশ বিষয়টি সম্পর্কে তাৎক্ষণিকভাবে অবগত হতে পারেন। এছাড়া এরূপ কোনাে কোনাে সাইটে কর্মপ্রত্যাশীগণ নিজেদের নিরবন্ধিত করে রাখতে পারেন। সে ক্ষেত্রে, যেকোনাে নতুন কাজের খবর প্রকাশিত হওয়ামাত্রই নিবন্ধিত ব্যক্তি ই-মেইল বা এসএমএস-এর মাধ্যমে এ সম্পর্কে অবহিত হতে পারেন। 

ঘরে বসে আয়ের সুযােগ: ইন্টারনেটের বিকাশের ফলে বর্তমানে তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলাের জন্য ঘরে বসে অন্য দেশের কাজ করে দেওয়ায় সুযােগ সৃষ্টি হয়েছে। বিশ্বর বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান তাদের নিজে্েদের অনেক কাজ, যেমন – ওয়েবসাইট উন্নয়ন, রক্ষণাবেক্ষণ, মাসিক বেতন – ভাতার বিল প্রস্তুতকরণ, ওয়েবসাইটে তথ্য যুক্তকরন, সফটওয়্যার উন্নয়ন ইত্যাদি অন্য দেশের কর্মীর মাধ্যমে সম্পন্ন করে থাকে। 

এটিকে বলা হয় আউটসাের্সিং (Outsourcing). ইন্টারনেট সংযােগ থাকলে যে কেউ এ ধরনের কাজের সঙ্গে যুক্ত হতে পারে। এক্ষেত্রে কাজের দক্ষতার পাশাপাশি তারা দক্ষতাও সমানভাবে প্রয়োজন হয়। এই সকল কাজ ইন্টারনেটে অনে্ক সাইটে পাওয়া যায়। এর মধ্যে জনপ্রিয় কয়েকটি হলাে:আপওয়ার্ক (www.upworkcom), ফ্রীল্যান্সার (www.freelancer.com), ইল্যান্স (www.elahce.com) ইত্যাদি। বাংলাদেশের মুক্ত পেশাজীবীগণ এই সকল সাইট ব্যবহার করে আত্মকর্মসংস্থানে সক্ষম হচ্ছে। আউটসাের্সিং – এর মাধ্যমে কর্মসংস্থানের সুযােগও ক্রমােগত বৃদ্ধি পাচ্ছে।

উপসংহার: তথ্যপ্রযুক্তি খাতে দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। এ পরিবর্তন আসছে সরকারি বিভিন্ন উদ্যোগের পাশাপাশি তরুণদের নানা উদ্যোগ আর প্রচেষ্টায়। তাঁদের হাত ধরেই দেশে স্মার্টফোন ও ইন্টারনেটের ব্যবহার বাড়ছে। এতে দ্রুত বদল যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন খাত। 

আমাদের কাজের মধ্যে কোন প্রকার ভুল ত্রুটি দেখা গেলে আমাদেরকে কমেন্ট করে জানান। প্রতি সপ্তাহের সকল বিষয়ের অ্যাসাইনমেন্টের উত্তর আপডেট পেতে আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করতে পারেন। আমাদের কাছ থেকে ন্যূনতম সাহায্য পেয়ে থাকলে আপনাদের অন্যান্য বন্ধুদের সাথে ওয়েবসাইটটিকে ফেসবুকে শেয়ার দিতে পারেন।

ঘরে বসে অনলাইনে কিভাবে টাকা উপার্জন করবেন ফ্রীতে –How to make money online from home CLICK HERE IT’S FREE

স্বীকারোক্তিঃ এখানে উপস্থাপিত সকল তথ্যই দক্ষ ও অভিজ্ঞ লোক দ্বারা ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহ করা। যেহেতু কোন মানুষই ভুলের ঊর্দ্ধে নয় সেহেতু আমাদেরও কিছু অনিচ্ছাকৃত ভুল থাকতে পারে।সে সকল ভুলের জন্য আমরা আন্তরিকভাবে ক্ষমাপ্রার্থী এবং একথাও উল্লেখ থাকে যে এখান থেকে প্রাপ্ত কোন ভুল তথ্যের জন আমরা কোনভাবেই দায়ী নই এবং আপনার নিকট দৃশ্যমান ভুলটি আমাদেরকে এই খানে জানাতে পারেন ক্লিক করুন।  

Previous articleঅষ্টম-৮ম শ্রেণির ইংরেজি একাদশ-১১তম সপ্তাহের এসাইনমেন্ট উত্তর-সমাধান ২০২১
Next articleনবম-৯ম শ্রেণির বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় একাদশ-১১তম সপ্তাহের এসাইনমেন্ট উত্তর-সমাধান ২০২১

4 COMMENTS